শরীরে বীর্য ধরে রাখলে কি হয়,মেডিসিন ও স্বাস্থ্য টিপস

শরীরে বীর্য ধরে রাখলে কি হয় , বীর্য আটকে রাখলে কি কি সমস্যা হয়? তার মানে চেপে ধরে রাখলে সিমেন বাইরে পড়ুক বা না পড়ুক একই ঘটনা ঘটবে।মেডিসিন ও স্বাস্থ্য টিপস ,  কিন্তু চেপে ধরে রাখার কারনে বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে যেমন-প্রেশারের কারনে লিংগের ইন্টার্নাল আবরন ছিলে যেতে পারে ব্যথা হতে পারে ইনফেকশন হতে পারে শেষমেষ পরনতি প্রোস্টেট ক্যান্সার হতে পারে। আমার খুব তাড়াতাড়ি বীর্যপাত হয়ে যায় মিলনের সময়।

 

শরীরে বীর্য ধরে রাখলে কি হয়



লক্ষণ দেখা যায়:


ঘনঘন প্রস্রাব করার প্রয়োজন হয়, বিশেষ করে রাতের বেলায়।
প্রস্রাবের প্রচন্ড বেগ পাওয়া, এমনকি মাঝেমাঝে বাথরুমে যাওয়ার আগেই প্রস্রাব করে ফেলা।
প্রস্রাব করতে কষ্ট হওয়া।
প্রস্রাব করতে প্রচুর সময় লাগে।
প্রস্রাবে বেগ থাকে না।
প্রস্রাব করার পরো মুত্রথলিতে প্রস্রাব রয়েছে এমন অনুভব হওয়া।



যেসব লক্ষণে বুঝবেন প্রস্টেট ক্যান্সার-


১. প্রস্রাবে সমস্যা হলেও মূত্রত্যাগের গতি কমে যেতে পারে।সঠিকভাবে নিয়ম মেনে চলতে হবে এবং  এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া জরুরি। তবে এ ধরনের সমস্যা মূত্রনালির সংক্রমণের কারণেও হতে পারে।

২. প্রস্রাবের রঙ গাঢ় হলে মূত্রত্যাগের সময় তলপেটে ব্যথা হতে পারে।সঠিকভাবে নিয়ম মেনে চলতে হবে এবং  এটি প্রস্টেট ক্যান্সারের অন্যতম একটি লক্ষণ।

৩. প্রস্রাবের সময় যদি প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত বের হওয়া ও কোনো রকম ব্যথা বা জ্বালা বোধ করলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।মেডিসিন ও স্বাস্থ্য টিপস

৪. হাড়ে ব্যথা হলে। সঠিকভাবে নিয়ম মেনে চলতে হবে এবং বিশেষ করে মেরুদণ্ডে বা কোমরে ব্যথা হলে তা প্রোস্টেট ক্যান্সারের লক্ষণ হতে পারে।

৫. বীর্যের সঙ্গে রক্ত, তলপেটে অসহ্য যন্ত্রণা, প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যাওয়া ইত্যাদি প্রোস্টেট ক্যান্সারের লক্ষণ।

বীর্য দেহে জমিয়ে রাখলে তা শরীরের চামড়ার অভ্যন্তরে জমা হতে থাকে যার কারনে দেহ তরতাঁজা থাকে, তবে পেশিবহুল দেহ গঠনে বীর্যের ভূমিকা নাই বললেই চলে। সঠিকভাবে নিয়ম মেনে চলতে হবে এবং অন্ডথলিতে বীর্য পরিপূর্ন হলে তা স্বপ্নদোষের মাধ্যমে শিশ্ন থেকে বেরিয়ে যায়।

তথ্যসূত্র: হেলথলাইন